ওয়ার্ডপ্রেস :: কেন শিখবেন, কিভাবে শিখবেন (রিসোর্স সহ)

বর্তমান সময়ে সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত ব্লগিং এবং পাবলিশিং প্লাটফর্ম ওয়ার্ডপ্রেস। ব্যক্তিগত ব্লগ থেকে শুরু করে কর্পোরেট সল্যুশন সকল ক্ষেত্রেই ব্যবহার হচ্ছে এটি। তৈরী হয়েছে অসংখ্য সাইট, সেই সাথে পাল্লা দিয়ে ওয়ার্ডপ্রেস ডেভেলপারদের চাহিদাও বেড়েছে বহুগুণে। গত কয়েক বছরে যা ছিল চোখে পড়ার মত এবং অর্থনৈতিক সংকট থাকার পরও প্রতিনিয়ত এ চাহিদা কমেনি একটুও।

2014-wordpress-website-trends2-660x369

আসলে সিএমএস ভিত্তিক ওয়েবসাইটগুলো প্রতিনিয়তই বাড়ছে, এর মাঝে তুলনামূলকভাবে ওয়ার্ডপ্রেস সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হচ্ছে। স্মলবিজট্রেন্ডস এর দেয়া এক তথ্যমতে পুরো ইন্টারনেট জগতের কমপক্ষে ১৯ শতাংশ ওয়েবসাইট এখন ওয়ার্ডপ্রেস প্লাটফর্মে তৈরী। টেক সাইটগুলোর কথা বিবেচনা করা হলে এটি হবে ৫০ শতাংশের কাছাকাছি। তাছাড়া বর্তমান সময়ে বিশ্বের নামিদামি কিছু কোম্পানী যেমন ফোর্ড মোটরস, নাসা তাদের নিজস্ব ওয়েবসাইটও তৈরী করেছে ওয়ার্ডপ্রেস প্লাটফর্মে। আর ২০১৪ সালে আশা করা যাচ্ছে এই ট্রেন্ড বাড়বে আরো বহুগুণে।

jobgraph

ওয়েবসাইট তৈরীতে অন্যান্য সিএমএস এর তুলনায় ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহারের তুলনামূলক হার কি রকম সেটি ডব্লিউথ্রিটেকস এর এই ডায়াগ্রাম থেকে খুব ভালভাবেই বুঝা যায়। কার্যত এক্ষেত্রে কাজ করার সুযোগও বাড়ছে সেজন্যে।ওয়ার্ডপ্রেস নিয়ে সফলতার সাথে কাজ করছে এমন একটি প্রতিষ্ঠান থিমশ্যাকারের মতে এই বছরে ওয়েবের জগতে রাজত্য করবে ওয়ার্ডপ্রেস থিম ডেভেলপমেন্ট। কারণ ডিজাইন ট্রেন্ডই নির্ধারণ করে দেয় একটি থিম একজন ক্রেতার নিকট কতটুকু আকর্ষণীয় হতে পারে।

তাছাড়া ইল্যান্সের অনলাইন এমপ্লয়মেন্ট রিপোর্ট অনুযায়ী ওয়ার্ডপ্রেস এবং পিএইচপির কাজের চাহিদা রয়েছে চাহিদার শীর্ষে। এ পর্যন্ত কাজ পোস্ট হয়েছে ২ লাখ ২৪ হাজার একশত ৯২টি, প্রবৃদ্ধি ৮ শতাংশ। জব প্রতি গড় বাজেট ৯ শত ৮০ ডলার এবং ঘন্টা প্রতি কাজের রেট ১৯ ডলার। পাশাপাশি অন্যান্য মার্কেটপ্লেসগুলোতেও ওয়ার্ডপ্রেস ডেভেলপমেন্টের কাজ পোস্ট হচ্ছে প্রতিনিয়ত।

যা জানতে হবে

একটা কথা সোজাসোজি বলতেই হবে, একজন দক্ষ ওয়ার্ডপ্রেস ডেভেলপার হওয়া যথেষ্ট কঠিন কাজ। তবে পরিকল্পিতভাবে লেগে থাকলে অবশ্যই শেখা সম্ভব। ওয়ার্ডপ্রেস থিম ডেভেলপমেন্ট নিয়ে কাজ করার জন্য অবশ্যই এইচটিএমএল,সিএসএস জানতে হবে। সেই সঙ্গে জেকুইয়ারী, জাভাস্ক্রিপ্ট এবং ব্যাকএন্ড ডেভেলপমেন্টের জন্যে পিএইচপি এবং মাইএসকিউএল জানার প্রয়োজন হবে। আর কেবল ওয়ার্ডপ্রেস থিম কাস্টমাইজেশনের জন্য এইচটিএমএল,সিএসএস এবং ওয়ার্ডপ্রেস ফ্রেমওয়ার্কেরও ব্যবহার জানা থাকলেই চলবে। তবে কিছু টিউটোরিয়াল পড়ে ওয়ার্ডপ্রেস ইনস্টল আর কিছু কাস্টমাইজেশন করতে পারলেই কেউ দক্ষ ডেভেলপার হয়ে যেতে পারেনা। সেজন্যে তাকে হয়তো এক্সপার্ট বলা চলে। দক্ষ হতে গেলে প্রচুর শ্রম, মেধা এবং সময়ের প্রয়োজন। তাই চেষ্টা করুন এক্সপার্টের চেয়ে বেশি কিছু হতে।

কেন হতে হবে সেরা ডেভেলপার!

আগে বলুন কেন হবেন না? যদি ভাল কিছু করতে চান তবে কেন গড়পড়তা অবস্থায় পড়ে থাকবেন! এমন গড়পড়তা অবস্থায় অনেকেই আছে, তাদের চেয়ে বেশি কিছু করার চিন্তা করুন। তাছাড়া সেরা হবার আরো কিছু কারণ আছে,

WordpressDesigner

আয়ের নিশ্চয়তা: ওয়ার্ডপ্রেস ডেভেলপমেন্টের চাহিদা যেমন বেশি তেমনি এই ক্ষেত্রে সেরা ডেভেলপারদের প্রাপ্য পরিশোধ করতে ক্লায়েন্টও কার্পণ্যতা করেনা।

বেছে নিন সেরা ক্লায়েন্ট: যখন নিজেকে নিয়ে যাবেন সফলতার শীর্ষে, খুজে পাবেন কাজের স্বাধীনতা। কোন কাজ করবেন নিজের ইচ্ছেমত বেছে নিবেন। পছন্দ হলে বলবেন “হ্যা,” নাহয় বলবেন “না”।

গড়ে নিন নিজের রাজত্ব: সেরা মানে হল আপনারও কিছু দায়িত্ব রয়েছে, রয়েছে ওয়ার্ডপ্রেসের ভবিষ্যত নির্ধারণের যোগ্যতা।

কিভাবে শিখবেন:         

ওয়ার্ডপ্রেস শেখার জন্যে অসংখ্য রিসোর্স রয়েছে, হাজার হাজার মানুষ কথা বলছে অনলাইনে। এই কোলাহলের মাঝে ভাল রিসোর্স খুজে পাওয়া আসলেই খুব কষ্টকর হয়ে গেছে। তাই যদি ভাল কিছু শিখতে চান তবে ভাল মানের রিসোর্স বেছে নিন, আর মনযোগ দিন সেটার প্রতি। এখানে তেমন কিছু রিসোর্স দিয়ে দিচ্ছি,

abacus

ওয়ার্ডপ্রেস কোডেক্স
খুব বেসিক থেকে শুরু করে মাস্টারিং পর্যায়ে যেতে চাইলে সবচেয়ে ভাল রিসোর্স হল ওয়ার্ডপ্রেস কোডেক্স। কারণ এটি এন্ড ইউজারদের কথা বিবেচনা করে সেভাবেই তৈরী করা হয়েছে। তাছাড়া শিখতে পারেন থিম ডিজাইন এবং প্লাগইন ডেভেলপমেন্ট।

ওয়ার্ডপ্রেস বই

অসংখ্য বই রয়েছে ওয়ার্ডপ্রেসের উপর। নিজের আগ্রহ বুঝে শুরু করেই দেখুন না কি হয়। কি, বুঝতে পারছেন না কোনটি থেকে শুরু করা যায়! কোন সমস্যা নেই, ডামিস সিরিজের “ওয়ার্ডপ্রেস ফর ডামিস” বইটি দেখুন। বইটি কিন্তু বেশ কাজের। তবে যে বইটিই পড়ুন না কেন, বইটির শেষ হলে এর উপর একটি রিভিউ লিখার পাশাপাশি লেখককে ধন্যবাদ জানাতে ভুলবেন না যেন।

ওয়ার্ডপ্রেস ব্লগ

সেরা ব্লগগুলো খুজে বের করুন, ফিড সাবস্ক্রাইব করে রাখুন। নিয়মিত আপডেটগুলো পড়ুন এবং ফিডব্যাক দিন। কিছু পছন্দের ব্লগ স্ম্যাসিং ম্যাগাজিন, ওয়ার্ডপ্রেস টিউটসপ্লাস, ওয়ার্ডপ্রেস ক্যান্ডি

তাছাড়া প্রফেশনালি কাজ করছেন এমন কারো কাছেও শিখতে পারেন। বাংলাদেশে ডেভসটিম ইনস্টিটিউটে দেয়া হচ্ছে এর উপর প্রফেশনাল প্রশিক্ষণ, চার মাসের এই প্রশিক্ষণ সফলভাবে সম্পন্ন করে আপনিও শুরু করতে পারেন ওয়ার্ডপ্রেস থিম ডেভেলপমেন্ট ক্যারিয়ার।

কাজে লাগতে পারে যে ওয়েবসাইটগুলো:

http://www.w3schools.com/

http://tutorials.tutsplus.com/

http://css-tricks.com/

http://www.php.net/manual/en/

https://developer.mozilla.org/en/docs/Web/JavaScript

http://www.wpbeginner.com/

টপ ওয়ার্ডপ্রেস ডেভেলপার হতে হলে অবশ্যই ক্রমাগত দক্ষতার উন্নয়ন বজায় রাখতে করতে হবে অনুশীলন, থাকতে হবে পরিশ্রম করার ইচ্ছা। শিক্ষার উপর ইচ্ছাকৃত ফোকাসের মাধ্যমে প্রক্রিয়াটি শুরু হয় আর ব্যাপক বাস্তব অভিজ্ঞতার মাধ্যমে এগিয়ে যেতে থাকে সময়ের সাথে। আজ তাহলে এ পর্যন্তই, শেষ করছি সেরা ওয়ার্ডপ্রেস ডেভেলপার জোনাথন বোল্ড এর এই কথাটি দিয়ে-

The title of a “top developer” demands dedication to the WordPress community, as well as recognition of the responsibilities by those who mold and shape the future of WordPress.

comments

7 COMMENTS

  1. At first thanks for this nice post. WordPress has more than 60 million websites all over the world and it will be more popular in upcoming time. So WordPress developing is good opportunity for beginner to setup online career.

  2. অনেক সাহস পেলাম আপনাদের লেখা পরে। সাথে সাথে শিখার গাইড লাইন ও পেলাম। Thank You

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here