নিস সাইট করবো নাকি অথোরিটি?

ব্লগিংয়ে আপনি নতুন, শুরু করতে চাচ্ছেন তবে ভাবছেন কেমন সাইট বানাবেন, নিশ সাইট নাকি অথোরিটি সাইট? তাহলে আমার আজকের এই লেখাটি আপনারই জন্য। আসুন শুরুতেই জেনে নেই নিস সাইট এবং অথোরিটি সাইট কি, কেমন হয় এসব নিয়ে!

নিস সাইট 

নিস সাইট তৈরি হয় যেকোনো একটি নিদিষ্ট বিষয় এর উপর ভিত্তি করে, হতে পারে সেটি অ্যামাজন বা অন্য কোন মার্কেটের প্রোডাক্ট ভিত্তিক। নিস সাইট গুলা খুব তাড়াতাড়ি গুগলে রাঙ্ক করানো যায় আর এতে করে সাইট থেকে আর্নিংটা তাড়াতাড়ি আসে। একটি নিস সাইটে সাধারণত দুই ভাবে আর্নিং হয়ে থাকে, ১ গুগল অ্যাডসেন্স ২ অ্যামাজন অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং থেকে। এছাড়াও অনেকেই অনেক ভাবেই সাইট মানিটাইজ করে।

অথরিটি সাইট

যখন কেউ আথরিটি তৈরি করে তখন সে যেকোনো একটি বিষয় নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা। এক্ষেত্রে তার চিন্তা ভাবনা থাকে সুদূর প্রসারী। সে চায় তার একটি ব্র্যান্ড প্রতিষ্ঠা করতে। নিস সাইটের মতো খুব অল্প সময়ে আর্নিং না আসলেও সময়ের ব্যাবধানে সে অনেক ভালো ফিডব্যাক পেয়ে থাকে।

niche-vs-authority

আমার কিছু কথা!

কিছু মানুষের কথা শুনে আমাদের মধ্যে একটা ধারনা কাজ করে, অথরিটি সাইট তৈরি করার চেয়ে নিশ সাইট নিয়ে নামাই ভালো, হয়তো তাদের কাছে অনেক যুক্তিই আছে। জানি খুব অবাক হবেন যদি বলি, বাংলাদেশে আমরা নিশ সাইট নিয়ে যখন মেতে উঠলাম (২০১২-১৩ মাঝামাঝি) তারও ২/৩ বছর আগে বাহিরের মার্কেটারটরা এর ক্রিম সম্পূর্ণ নিয়ে ফেলেছিলো।

আমি আর আমার বন্ধু যখন শুরু করেছিলাম নিশ ব্লগিং/ব্যবসায় তখনো এখানে তেমন সাড়া পড়েনি। সর্বোপরি সার্চ ইঞ্জিন গুলোর বেশ কিছু পরিবর্তনের সাথে সাথে কৌশল গুলোও কম কাজ করছে। আমি এমন অনেক নিশ সাইট বিল্ডারকে দেখেছি যারা এখন নিশ বাদ দিয়ে অথোরিটি ব্লগিং নিয়ে কাজ শুরু করেছেন। জানি, পাশাপাশি কাজ করছেন নিশ সাইটের নতুন কৌশল রপ্ত করা নিয়ে, নিয়মিত চালিয়ে যাচ্ছেন এক্সপেরিমেন্ট।

ব্লগিং শুরুর দিকে নিজের ব্লগে টেক বিষয়ে নিয়মিত লেখালেখি করতাম, ব্লগিং এর বিভিন্ন বিষয় গুলো জানাশুনা বাড়লো পাশাপাশি প্রমোশন স্ট্রেটেজি গুলো আয়ত্ব আনতে বেশ বেগ পেতে হয়েছে তাই তখন আমরা দীর্ঘ মেয়াদি প্লানে এগিয়েছি। নিয়মিত shamimnasir.com এ লিখতাম আমি, এছাড়াও বেশ কয়েক বছর আমার পছন্দের এড়িয়া “টেক্স টাইল” বিষয়ক ব্লগে লিখেছি, আস্তে আস্তে অথোরিটি ব্লগ দ্বার করিয়েছি, সফলতা আসতে লাগলো। নিশ সাইট নিয়ে তখনো ভাবিনি, কারন আমার জানার শুনার স্টেজ প্রাইমারিতে। নিজেকে সময় দিতে চেয়েছি… শুরু বছর ২ পরেই যখন অভিজ্ঞতা বাড়তে লাগলো, নিশ থিওরি গুলো রপ্ত করলাম, প্রমোশন স্ট্রেটেজি গুলো নিয়ে বিস্তারিত বুঝলাম শুরু করলাম নিশ সাইট!

এখানে একটা কথা বলে নেওয়া ভালো, আমরা তখন ব্যক্তিগত ভাবে কাউকে পাইনি যিনি নিশ সাইটের ব্যাপারে সারাসরি গাইড করবেন। আমি নিজেই প্রথম ২/৩ টা প্রজেক্টে খুব একটা সফলতা পাইনি, অনেক গুলো কারনে। তবে এখন দিন পাল্টিয়েছে, অনেক ব্লগ আছে যারা নিয়মিত নিশ ব্লগিংয়ের স্ট্রেটেজি, ক্যাস স্ট্যাডি শেয়ার করছে পাশাপাশি নিয়মিত লিখে যাচ্ছেন। বাংলাদেশের অনেক ছেলেই এখন নিশ ব্লগিং করছেন। বেশ ভালোও করছেন এমন অনেকের সাথেই পরিচয় আছে আমার। আমি নিজেও অনেককে পার্সোনালি, অফিসিয়ালি শিখিয়েছি।

niche-marketing-destroyed

নিশ সাইট নাকি অথোরিটি সাইট, কোনটা ভালো হবে?

আমি লেখাটিতে চেষ্টা করবো যুক্তি দিয়ে নিশ সাইট ও অথোরিটি সাইট তৈরির পজিটিভ দিক গুলো তুলে ধরতে। এবং সর্বোশেষ আপনার ব্যক্তিগত প্রেক্ষাপট কি কি হতে পারে সেটার উপর ভিত্তি করে কোনটা আপনি শুরু করবেন সেই বিষয়ে আমার নিজে মতামত ব্যক্ত করবো।

অথোরিটি সাইটের পক্ষে যুক্তি…

# অথোরিটি সাইট মানেই ব্রান্ড

– যখন কেউ অথোরিটি সাইট বানাবে তার লক্ষ হবে একটি ব্রান্ড প্রতিষ্ঠা করা এবং স্থায়ি ভাবে সেই সাইট থেকে আয় জেনারেট করা। আমার কাছে মনে হয় নিচের এই কারন গুলো আমাকে ব্রান্ড হিসেবে প্রতিষ্ঠা করে যা আস্তে আস্তে আমাকে অথোরিটিতে রুপান্তর করবে। পয়েন্ট গুলো দেখুন…

  • অথোরিটি সাইটে বিষয় ভিত্তিক অনেক ইনফরমেশন/কন্টেন্ট থাকবে। মানুষ চাহিদা মত তাদের তথ্যবহুল কন্টেন্ট খুঁজে নিবে। প্রোডাক্ট ভিত্তিক হলে, লিস্টে অনেক অনেক প্রোডাক্ট থাকবে এবং ক্রেতারা যাচাই বাছাই করে পছন্দমত প্রোডাক্ট কিনতে পারবে।
  • অনেক গুলো নিশকে বাছাই করে ক্যাটাগরি করে এগুনো যাবে।
  • বিষয় ভিত্তিক এবং নিয়মিত কন্টেন্ট ডেভেলপের ফলে ইউজারদের এঙ্গেজমেন্ট বাড়বে সাথে সাথে তারা নির্ভরযোগ্য সাইট হিসেবে সাইটটা অন্যের কাছে রেফার করবো।
  • কন্টেন্ট এরিয়া বড় হওয়ায় অনেক বেশি ট্রাফিক পাওয়া যাবে, আর ট্রাফিক বাড়লে আয়ও তুলনামূলক বৃদ্ধি পাবে।
  • ট্রাস্টেড সাইট কিন্তু সব সময়ই অন্যরের রিকমেন্ডেশন পায়, যা আয় বাড়াবে নিঃসন্দেহে।
  • এক কথাই বলতে গেলে অথোরিটি সাইট হচ্ছে কচ্ছপের মতো আর দিন শেষে কিন্তু খরগোশের তুলনায় কচ্ছপই বিজয়ি হয়। 🙂

# দেরি হলেও রিটার্ন ভালো আসে

শুরুতে একটি অথোরিটি সাইট বানাতে কিন্তু আপনাকে খুব বেশী ইনভেস্ট করতে হয় না, তুলনামূলক সময় দিতে থাকলে আয় অনেক বেশি হয়।

# নতুনদের জন্য নিস সাইট কিন্তু একটু রিস্কি

কি আমার কথা শুনে অবাক হচ্ছেন? হা এটাই সত্য কথা। কেন রিস্কি?

  • আপনার অভিজ্ঞতা নেই বললেই চলে। নিশ সাইট তৈরিতে যেমন স্ট্রেটেজিক প্লান আর কাজের অভিজ্ঞতা প্রয়োজন সেটার তুলনায় আপনার জ্ঞান অপ্রতুল।
  • নিত্যই সার্চ ইঞ্জিন গুলোর অ্যালগোরিদম পরিবর্তন হচ্ছে, প্রাইমারি কিওয়ার্ডে বেশি দিন যে আপনি টিকে থাকতে পারবেন অথবা প্যানাল্টি খেলে ব্যক করতে পারবেন সেটা কিন্তু নিশ্চিন্তে বলা যাবে না।
  •  গুরুত্বপূর্ন সময়ে মানিটাইজের ঝামেলায় ভুগতে পারেন।
  •  অনেক সময় ডিরেক্ট কোন প্রডাক্ট নিয়ে কাজ করতে গেলে মার্কেটপ্লেসে প্রডাক্ট এভেইলএবল নাও থাকতে পারে।

এক্ষেত্রে অথোরিটি সাইট শুরু করা অনেক এগিয়ে আছে। আমি শুধু এত টুকুই বলবো আপনি যথেস্ট সময় পাবেন নিজেকে শুধরে নিয়ে ওয়েবমাস্টারিও ভাষায় এগিয়ে চলতে।

চলবে…

comments

2 COMMENTS

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here