ব্লগিংয়ের মাধ্যমে আয়ের ৫ উপায়

অনলাইনে আয়ের বিভিন্ন মাধ্যম রয়েছে। এর একটি ব্লগিং। তবে ব্লগিংয়ের ক্ষেত্রেও আয়ের কয়েকটি উপায় রয়েছে। তবে সেগুলোর স্থায়িত্ব, নিরাপত্তা, মান সর্বোপরি যথাযথ মাধ্যম খুঁজে পাওয়া নতুন ব্লগারদের জন্য অনেকটা কষ্টকর বটে। এই পোস্টটিতে আমি নতুন ব্লগারদের জন্য জনপ্রিয় ৫টি আয়ের মাধ্যম নিয়ে সংক্ষিপ্ত আলোচনা করছি। আমি নিজেই এই মাধ্যমগুলো ব্যবহার করে থাকি এবং আয়ের পরিমানও যথেষ্ঠ ভালো। আশাকরী পরবর্তী পোস্টে এগুলো আলাদা ও বিশদভাবে আপনাদের সামনে তুলে ধরতে পারবো।

১.    গুগল অ্যাডসেন্স: 

ব্লগিংয়ের ক্ষেত্রে আয়ের সবচেয়ে সহজ ও জনপ্রিয় মাধ্যম হলো গুগল অ্যাডসেন্স। এটি সহজ ও জনপ্রিয় এই কারণে যে, আপনি আরপনা ব্লগ বা ওয়েবসাইটের জন্য গুগলে অ্যাডসেন্সের জন্য শুধু আবেদন করলেই হবে। আপনার অ্যাকাউন্টটি অ্যাকটিভ হলে গুগলের দেওয়া কোড আপনার ওয়েব বা ব্লগে যথাস্থানে বসিয়ে দিলেই হবে। স্বয়ংক্রিয়ভাবে আপনার গুগল অ্যাডসেন্সের বিজ্ঞাপন প্রদর্শিত হবে।

এটি সহজ ও জনপ্রিয় হওয়ার আরেক কারণ হলো গুগল অ্যাডসেন্স তার কার্যক্রমে অশপট। গুগল প্রথমে আপনার ব্লগ বা ওয়েবের প্রতিটি লিংকে গিয়ে ক্রল করে এবং প্রাসঙ্গিক বা রিলিভ্যান্ট কি ওয়ার্ড খুঁজে বের করে। তারপর আপনার রিলিভ্যান্ট কিওয়ার্ডের সাথে সমন্বয় রেখে একই ধরণের বিজ্ঞাপন প্রদর্শণ করে। গুগলের কাছে সকল অ্যাডভারটাইজারদের সর্বশেষ ডাটাবেজ সংরক্ষিত থাকে। একারণে প্রয়োজনীয় শর্ত মেনে চললে আপনার সফল হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। যখন আপনার পোস্টের রিলিভ্যান্ট কিওয়ার্ডের বিজ্ঞাপন প্রদর্শিত হয়, তখন ভিজিটর এই বিজ্ঞাপনে ক্লিক করার সম্ভাবনা বেশি। গুগল অ্যাডসেন্স হলো পে পার ক্লিক সিস্টেম, তাই যখনই কেউ আপনার ব্লগে প্রদর্শিত বিজ্ঞাপনে ক্লিক করবে, আপনি গুগল থেকে একটি নিদ্দিষ্ট পরিমান অর্থ আপনার অ্যাকাউন্টে জমা হবে। তবে কখন গুগল অ্যাডসেন্সের টার্মস অ্যান্ড কন্ডিশন বা নীতিমালা অমান্য করবেন না। যেমন- নিজে নিজের কম্পিউটার থেকে বিজ্ঞাপনে ক্লিক করবেন না বা আপনার বন্ধুদের ক্লিক করতে উৎসাহিত করবেন না। তাহলে আপনার গুগল অ্যাডসেন্সটি বাতিল হতে পারে। অ্যাডসেন্স সম্পর্কিত বেশ কয়েকটি পোস্ট পড়ার জন্য এই লিংকে ক্লিক করে অথবা ক্যাটাগরি থেকে অ্যাডসেন্স ক্যাটাগরি ক্লিক করতে পারেন।

২.    ডিরেক্ট অ্যাডভারটাইজমেন্ট: ব্যানার অ্যাড
যদি আপনার ট্রাফিক অনেক বেশি হয়, তাহলে আপনি আপনার ব্লগে সরাসরি ব্যানার বিজ্ঞাপন বসিয়ে ভালো আয় করতে পারেন। আপনার ভিজিটর যত বাড়বে, আপনার অ্যাডভারটাইজার অর্থাৎ যে আপনাকে বিজ্ঞাপনটি দিয়েছেন, তিনি আপনাকে বেশি পে করতে উৎসাহিত হবেন। এক্ষেত্রে আপনি ব্যানার বিজ্ঞাপনের জন্য কত টাকা নিবেন সেটি আপনার উপর নির্ভর করবে। সাধারণত একটি ব্লগে ২৫০ বাই ২৫০ পিক্সেল এর ব্যানার অ্যাডের জন্য প্রতি মাসে ৫০ ডলার পাওয়া যেতে পারেন, এটি মোটেই খারাপ নয়। যেসব ব্লগের ট্রাফিক অপেক্ষাকৃত বেশি তারা এর থেকে বেশি চার্জ নির্ধারণ করতে পারেন।

ডিরেক্ট অ্যাডভারটাইজিংয়ের ক্ষেত্রে সবচেয়ে বড় অসুবিধা হলো এক্ষেত্রে আপনাকে নিজে বিজ্ঞাপন খুঁেজ পেতে হবে। আপনাকে তাদের কাছে আপনার ব্লগে তারা বিজ্ঞাপন দিলে কি কি সুবিধা পাবে এসব নিয়ে একটি প্রোপোজাল লেটার পাঠাতে হবে। আমি নিজেই আমার ব্লগে বিজ্ঞাপন দেওয়ার জন্য বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের শরনাপন্ন হয়েছে। কিন্তু তাদের মধ্যে অল্পসংখ্যক আমার প্রস্তাবে রাজি হয়েছে। তবে আপনার ব্লগটি যদি জনপ্রিয় হয়, আপনি ভালো ট্রাফিক পান তাহলে আপনার ব্লগে ‘‘Advertise Here’’ লিংকটি হোমপেজে রাখতে পারেন। যদি কোনো অ্যাডভারটাইজার রাজি তাহলে তারা আপনার সঙ্গে যোগাযোগ করবে।

৩.    ফিচার্রড ব্লগ পোস্ট
একজন ব্লগার হিসেবে অনলাইনে আয়ের একটি অন্যতম মাধ্যম ফিচার্রড ব্লগ পোস্ট। এক্ষেত্রে একজন বিজ্ঞাপনদাতা তার পণ্য বা সেবার বিষয়ে একটি নিশ ব্লগে আর্টিকেল পাবলিশ করতে পারেন। এক্ষেত্রে তার পণ্য বা সেবার প্রসার বেশি ও কার্যকর হয়। এছাড়া পাবলিশার এখান থেকে ডুফলো ব্যাকলিংক পেতে পারেন। ফলে প্রত্যক্ষভাবেই আপনি লাভবান হবেন।

বিষয়টি যদি ভালোভাবে না বুঝেন, তাইলে একটু খুলে বলি। ধরেন, আপনি একটি নিদ্দিষ্ট বিষয় নিয়ে যেমন ডোমেইন বিক্রি ও  ওয়েব হোস্টিং নিয়ে লিখছেন। এক্ষেত্রে আপনার কোনো পোস্টে ডোমেইন ও হোস্টিং সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান তাদের নাম রেফার করার জন্য বলতে পারে। অথবা তাদের কাছ থেকে ডোমেইন ও হোস্টিং নিলে কি কি সেবা পাওয়া যাবে সেটি নিয়ে লিখতে পারেন। এক্ষেত্রে এ প্রতিষ্ঠানটি আপনার পোস্টের জন্য আপনাকে পে করবে। সাধারণত একটি ব্লগে প্রতিটি ফিচারর্ড পোস্টের জন্য ২৫ ডলার চার্জ পাওয়া যেতে পারে। অনেকে ফিচারর্ড পোস্টের সাথে ব্যানার অ্যাডও দিয়ে থাকেন। এক্ষেত্রে আপনাকে অ্যাডভারটাইজার খুঁজতে হলে ডিরেক্ট অ্যাডভারটাইজমেন্টের মতো একই পদ্ধতি অবলম্বন করতে হবে। আপনি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান বা ওয়েবসাইটকে ফিচারর্ড পোস্টের সুবিধাগুলোসহ প্রোপ্রোজাল পাঠাতে পারেন।

৪.    ব্যাকলিংক বিক্রি
ব্যাকলিংক হচ্ছে একটি সাইটের পেজর‌্যাংক বাড়ানোর মূল হাতিয়ার। একটি ওয়েবসাইটের কোন পৃষ্ঠায় যদি অন্য একটি সাইটের লিংক থাকে তাহলে দ্বিতীয় সাইটের জন্য এই লিংককে বলা হয় ব্যাকলিংক বা ইনকামিং লিংক। আর প্রথম সাইটের জন্য এই লিংকটি হচ্ছে আউটগোয়িং লিংক, অর্থাৎ এই লিংকে ক্লিক করে ব্যবহারকারী দ্বিতীয় সাইটে চলে যাবে। এইভাবে একটি ওয়েবসাইটের যত বেশি ব্যাকলিংক থাকবে সেই ওয়েবসাইটে ব্যবহারকারী আসার প্রবণতা বেড়ে যাবে। পাশাপাশি সার্চ ইঞ্জিনের রোবট প্রোগ্রাম সেই সাইটকে খুব সহজেই খুঁজে পাবে। এজন্য অনেক ওয়েব পাবলিশাররা তার ওয়েবসাইটের ব্যাকলিংক বাড়ানোর জন্য বিভিন্ন ব্লগসাইটের শরণাপন্ন হন।

আপনার ব্লগটি জনপ্রিয় হলে আপনি আপনার সাইটে অন্যসাইটের ব্যাকলিংক বাড়ানোর কাজ করতে পারেন। বিভিন্ন আর্টিকেল ডিরেক্টরি সাইটে পোস্ট করেও ব্যাকলিংক পাওয়া যায়। এই কাজটি করা যেতে পারে। সাধারণত একটি ব্যাক লিংকের জন্য ২০/২৫ ডলার চার্জ করতে পারেন। এ কাজটি পেতে যারা ব্যাকলিংক পেতে চায় তাদের কাছে আপনাকে একজন কোয়ালিটি রাইটার হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে হবে। তাদেরকে হাই পিআর ব্যাকলিংকের প্রয়োজনীয়তা বোঝাতে হবে, বিশেষ করে একটি নতুন ওয়েবসাইটের জন্য এটা কতোটা আবশ্যকীয় তা জানানো জরুরী।

৫.    অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং
একজন ব্লগারের জন্য আয়ের সবচেয়ে জনপ্রিয় মাধ্যম হলো অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং। অনলাইনে মোট আয়ের বেশিরভাগ রেভিনিউ আসে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং থেকে। অ্যাফিলিয়েশন হচ্ছে ঠিক এমনই একটি প্রোগ্রাম যার মাধ্যমে কোন ওয়েবসাইট যারা নিজের ওয়েবসাইটে কোন কোম্পানির বিভিন্ন  প্রোডাক্টস অ্যাডস হিসাবে ব্যবহারের মাধ্যমে ঐ কোম্পনিকে বিভিন্ন  প্রোডাক্টস অনলাইনে বিক্রয় করে দেয়ার শর্তে কমিশন ভিত্তিতে কাজ করে থাকে। এই সাইট থেকে রেফারেল হয়ে যদি কোম্পানির প্রোডাক্টস কেউ ক্রয় করে তবে কোম্পানির তাদের দেয়া শর্ত অনুযায়ী তাকে (%) কমিশন দিতে বাধ্য থাকে। আর এটাই হচ্ছে অ্যাফিলিয়েশন। বর্তমানে সারা বিশ্বব্যাপী বিভিন্ন কোম্পানির বিভিন্ন  প্রোডাক্টস নিয়ে অফিলিয়েশন করতে দেখা যায়। যেমন বিভিন্ন খেলার লাইভ ওয়াচ, মুভি লাইভ ওয়াচ, কলিং কার্ড, আরও বিভিন্ন নিত্য দিনের প্রোডাক্টস।

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করার ক্ষেত্রে অবশ্যই আপনাকে এমন পণ্য বা সেবা অ্যাফিলিয়েট করতে হবে যেটির কোয়ালিটি অবশ্যই ভালো হতে হবে। কারণ যেকোনো পণ্য বা সেবার রেপুটেশন সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ও টাকা দিয়ে পাওয়া সম্ভবন না। আমি আমার ব্লগে বিভিন্ন ওয়েবসাইটের অ্যাফিলিয়েট করি। তাই এক্ষেত্রে আমার পছন্দ নিশ সাইটগুলো এবং এগুলো আমার ব্লগে প্রমোট করি। এক্ষেত্রে তারা আমার সাইটের মাধ্যমে মেম্বার পান এবং আমাকে তাদের বিক্রয়ের একটি কমিশন দেন। আপনি বিভিণœ টুলের মাধ্যমে পোডাক্ট রিসার্চ করতে পারেন। যে পণ্য বা সেবাটি নিয়ে অ্যাফিলিয়েট করলে বিক্রয়ের পরিমাণ বেশি হওয়ার সম্ভাবনা বেশি অ্যাফিলিয়েটের জন্য বেছে নেওয়া লাভজনক ও ঝুঁকি কম। অ্যাফিলিয়েট নিয়ে আরো জানতে চাইলে ‘ওয়েবসাইট অ্যাফিলিয়েট প্রোগ্রাম’ শিরোনামের পোস্টটি পড়তে পারেন।

এই বিষয়গুলো ছাড়াও আরো অনেক মাধ্যম রয়েছে যার মাধ্যমে একজন ব্লগার আয় করতে পারেন। সম্ভব ও উৎসাহ সেসব বিষয় নিয়ে লিখবো। পোস্টটি সম্পর্কে আপনার মতামত জানাতে ভুলবেন না। শুভ হোক আপনাদের ব্লগিং লাইফ ও ভালো থাকবেন, সেই কামনা।

comments

27 COMMENTS

  1. ধন্যবাদ,আপনার পোষ্ট টি আমার আনেক কাজে লাগবে।

    • আপনাকেও আর্নট্রিক্সের পক্ষ থেকে অনেক ধন্যবাদ। আশাকরি পাশেই থাকবেন।.. 🙂

      • vai ami kaj korta cay kinto kivaba krbo kiso jani na kothay gala ami outsorcing ar kaj sikta parbo ata jodi amaka aktu kau bola dita paran tahola ami opokrito hobo plz…help me.skylancers a invest kora ami khub bipoda asi……plz help me:

        • আপনি ডেভসটিমে চলে আসেন। সেখানে এ বিষয়ে অনেক দিকনির্দেশনা পাবেন। একই সঙ্গে প্রশিক্ষণের সুযোগ রয়েছে।
          DevsTeam Limited
          Suit# 1212, Level#12, Multiplan Center,
          69-71 Elephant Road, Dhaka-1205.
          Bangladesh
          Phone: +880-1711 267 911
          email: contact[at]devsteam.com

    • ভাইয়া, অনেক ধন্যবাদ পোস্টটি পড়ার জন্য। ভাইয়া, যশোর ইনফোর মাধ্যমে আয় করতে গেলে প্রথমত এটির ইংরেজি সংস্করণ থাকতে হবে। মূল ডোমেইনে ইংরেজি সংস্করণ ও সাব-ডোমেইন করে বাংলা সংস্করণটি চালু করতে পারেন। এরপর ভিজিটর বেশি হলে আপনি উপরোক্ত বিষয়গুলো অ্যাপ্লাই করতে পারেন। আশাকরি কাজে আসবে। 🙂

  2. অনেক সুন্দর হয়েছে সুমন ভাই। আমার খুব কাজে দিবে। আমাকে আবার সবকিছু নতুন করে শুরু করতে হচ্ছে। আমার জন্যে দোয়া করবেন।

  3. Khub sundor post vai,

    Ami sports live watch er kaj kori, kintu amar product affiliation er kaj korar khub eccha, ami kivabe, kothay eta shikhbo jate kore ami earnings korte pari, ei bishoye jodi amake shothik diknirdeshona den tahole ami upokrito hobo.

    Thank you.

  4. It is very nice posting for freelancer. Anybody can follow it. Hope everybody will be benefited from this post. I like it. 🙂

  5. vai khub e jose hoise!!!! amk akta help krben? onno kno site er banner ami amr blog e post krbo kivabe? mane ki krle onno site er banner ta amr blog e show krbo? banner er jonno onnano site theke jei link ta day oita kothay post krbo amr blog er? plzzzzzzz vai amk ektu help krle onk khushi hobo!!!! thank u!!!!

  6. অনেক ভাল লাগলো ভাইয়া।
    ডিরেক্ট অ্যাডভারটাইজমেন্ট: ব্যানার অ্যাড।এই এড যারা দেয় তাদের মেইল যদি দিতেন তাহলে খুব উপকার হত।আর কি পরিমান পার মান্থ পেলে এড দিবে

  7. অনেক কিছু জানতে পারলাম আপনার পোষ্ট পড়ে। তাই উৎসাহিত হয়ে একটি বাংলা বই শেয়ারিং এর সাইট ওপেন করলাম। দোয়া করবেন যেন ভালো কিছু করতে পারি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here