বাংলাদেশ-ভারত সাইবার যুদ্ধ নিয়ে কিছু কথা

12
338

আশা করি সবাই আল্লাহ্‌র রহমতে ভালো আছেন।

আমিও আপনাদের দোয়ায় এবং আল্লাহ্‌র রহমতে ভালো আছি ।
সবাই বাংলাদেশ বনাম ভারতের সাইবার যুদ্ধ নিয়ে মনে হয় অবগত আছেন।

আমি আজকে এই সাইবার যুদ্ধ নিয়ে অল্প কথা শেয়ার করবো।

আমার স্বল্প জ্ঞানে যা সম্ভব তা শেয়ার করবো।

তাহলে চলুন আর কথা না বাড়িয়ে আজকের পোস্ট শুরু করি।

 

আসলে আমরা আমাদের বাংলাদেশের আইটি নিয়ে গর্ব করতে পারি।

আপনি যদি একজন বাঙ্গালী হন তাহলে আপনি ভারতীয় বিএসএফের নির্মম হত্যা কাণ্ডের কথা জেনে থাকবেন।

ফেলানি সহ আমাদের অনেক ভাই- বোনদের অকালে মিত্তুর কলে ঢলে পরতে হয়েছে।

তখন আমার আপনার ফেইসবুকে স্ট্যাটাস দেওয়া ছাড়া আর কিছুই করা সম্ভব ছিলনা।

এছাড়া আমাদের আর কিছু করার ক্ষমতা ছিলনা বলে মনে হয়।

প্রায় ৩-৪ মাস আগে ভারতীয় বেশ কয়েকটি সাইট বাংলাদেশের হ্যাকাররা হ্যাক করেছেন এই কারনে যে সীমান্তে আমাদের ভাই -বোনদের নির্যাতন করে মেরে ফেলার কারনে।

এর পর বেশ কিছুদিন সবাই বেশ চুপ চাপ ছিল।

কিন্তূ বিগত ২-৩ মাসে হানাদার বিএসএফ তাদের অন্যায় হত্যা কাণ্ড আরো প্রকাপ একার ধারন করে।

একজন মানুষ হিসাবে আমাদের সবার অনুশোচনা করা ছাড়া আর কিছুই করার ছিলনা।

তবে আমাদের খুব খারাপ লাগলেও কোন অজনা কারনে আমাদের বাংলাদেশ সরকার এই ব্যাপারে একেবারে চুপ ছিল তা আমার জানা নেই।

 

এই যখন অবস্থা তখনই বাংলাদেশের হ্যাকার গ্রুপ ভারতীয় বেশ কিছু ওয়েব সাইট হ্যাক করে এবং সাথে ফেলানির ছবি দিয়ে তাদের হত্যা কান্ড বন্ধ করতে বলে ।

যদি বন্ধ না করে তাহলে তারা তাদেরকে হুমকী দিয়ে বলে তারা এই সব বন্ধ না করলে ভারতীয় সাইবার স্পেস ধংস করে দেবে।

এবং তারি ধারাবাহিকতায়  বাংলা মায়ের দামাল ছেলেরা  ভারতের ২৫,০০০+ ওয়েব সাইট হ্যাক করছে  এবং এই  যুদ্ধে ভারতীয়রা বাংলাদেশের মাত্র ৪০০+ ওয়েব সাইট হ্যাক করতে পেরছেন 😀 । উপরের পরিসংখ্যান দ্বারা খুব সহজেই অনুমান করা

যায়যে আমরা আনডাইরেক্টলী সাইবার যুদ্ধে জয়ী। এবং মজার ব্যাপার হল  সেই সব সাইট গুলো বাংলাদেশী হ্যাকাররা হ্যাক করেছে ভারতীয় সরকার আপাতৎ সেই সব সাইট  বন্ধ করে দিয়েছে দুর্বল সিকিউরিটির জন্য এবং হ্যাকারদের নির্দেশ দিয়েছেন যে সাইট গুলোর সিকিউরিটি আর মজবুত করার জন্য।

ভারতেরে আমাদের সাথে সাইবার যুদ্ধে পেরে উঠতে না পারলেও তারা চীনের কাছে বাংলাদেশী হ্যাকারদের ভাবমূর্তি নষ্ট করার জন্য অনেক বুদ্ধি এঁটেছিল এবং তারা আমাদের সমস্যা সৃষ্টি করে দেওয়ার জন্য চীনের ওয়েব সাইট হ্যাক করে

বাংলাদেশীদের নাম চাপিয়ে দিতে চেয়েছিল কিন্তূ আল্লাহর রহমতে তারা সফল হতে পারেনি।

 

আর আমার মতে সব চেয়ে মজার এবং খুশির খবর হল ভারতীয় কংগ্রেস নেত্রী মমতা ব্যনারজির কথা বার্তা।

তিনি প্রথমেই বলেন যে তিনি তিস্তা নদীর ৫০ ভাগ পানি তিনি বাংলাদেশে দেবেন। এবং তিনি ওয়াদা করে বলে যে তিনি যেভাবেই হোক টিপাইমুখী বাদ দেওয়া বন্ধ করবে।

এবং বর্তমানে ভারতীয় বিএসএফ বাংলাদেশী সাধারন মানুষের উপর যে অমানুষিক নির্যাতন করেছে তার জন্য আমি ক্ষমা চাচ্ছি।

 

আসলেই এই সব কথা বার্তা শুনার পর খুব ভালো লাগারই কথা।

কিন্তূ সব চেয়ে অনুতাপের বিসয় হল তথাকথিত আইটি এক্সপার্ট 😀 মোস্তফা জব্বার এবং বাংলাদের পররাস্ট মন্ত্রী দিপু মনি।

 

মোস্তফা জব্বার বলে যে যারা এই ধরনের কাজ করছে তারা এই সব ভালো করছেনা তাদের পরিনতী ভালো হবেনা।

 

আর আমাদের দিপু মনি বলেন ” যারা ভারতের সাইবার স্পেস ধ্বংস করছে তারা যুদ্ধপরাধী এবং ইসলামের সন্ত্রাস ”

এবার বলেন এই মূর্খ কথা বার্তা শুনার পর মাথার অবস্থা কেমন হয়।

এখন আমার কথা হল যারা এই সাইবার যুদ্ধ করছে তারা কি করে যুদ্ধ অপরাধী হয় ?

তাদের বর্তমান বয়স কত হবে ?

যারা এই সাইবার যুদ্ধ করছে তাদের কারো যুদ্ধের আগে জন্ম হয়েছে বলে মনে হয়না।

আর এখানে যারা সাইবার যুদ্ধ করছে তারা কোন ধর্মের মানুষ ?

অবশ্যই তারা বিভিন্ন ধরম অবলম্বী ।

তাহলে তারা কিভাবে যুদ্ধপরাধী ?

কতটা মূর্খ হলে এমন কথা বলা যায়।

আর আমি মানলাম তাদের বয়স ৪০+ 😀 এবং তারা সকলে ইসলাম ছাড়া অন্য ধর্মের অবলম্বী।

এখন আমি বলতে চাচ্ছি তারা ওয়েব সাইট হ্যাক করে আমাদের বোন ফেলানীর ছবি দিয়ে বাংলাদেশের মানুষ হত্যা করতে নিষেধ করছে তাহলে তারা কিভাবে তারা যুদ্ধপরাধী এবং ইসলামের শত্রু হয় ?

হায়রে মাথা মোটা । কি বলবো এই সব পাগলুদের বা কি বলা উচিত ?

হা হা হা হা হা হা 😀

 

আর কিছু লেখার বা বলার মত ক্ষমতা আমার নেই ।

আর এই ধরনের লেখা আগে কখনো লেখা হয়নী তাই তেমন গুছিয়ে লেখতে পারিনী।

 

সবাই ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন, ভালবাসাসহ আপনাদের সাব্বির আলম।

comments

12 COMMENTS

  1. কি আর করার আছে আমাদের । আমাদের সবচেয়ে বড় অপরাধ আমরা প্রতিবাদ করতে পারিনা …….

    আল্লাহ আমাদের সেই ক্ষমতা দান করুন ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here