প্রফেশনাল ব্লগার এন্ড সার্টিফাইড অ্যাফিলিয়েট মার্কেটার হতে চান? আগেভাগেই জেনে নিন…

লেখক : , প্রকাশকাল : 21 July, 2012

প্রফেশনাল ব্লগিং ও অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং কি?
ইন্টারনেটে ব্লগ লিখে বাংলাদেশ থেকেই অনেকে আয় করছেন ৩ থেকে ৪ হাজার ডলার। ইন্টারনেটে আয়ের বিশাল এ ক্ষেত্রটিতে আমাদের দেশের তরুণরা যুক্ত হতে পারছে না কেবল সঠিক গাইডলাইনের অভাবে। অনেকে বিচ্ছিন্নভাবে So called গুরু দের কাছ থেকে ব্লগিং থেকে আয় করা শিখলেও শেষ পর্যন্ত সফল হতে পারেন না কেবল গোপন সব টেকনিকগুলো না জানার কারণে। বিশাল এ কাজের ক্ষেত্রটিতে এগোতে গেলে আপনাকে কৌশুলী হতেই হবে, জানতে হবে পরীক্ষিত সব উপায়। ব্লগিংয়ের মাধ্যমে কেবল টাকা নয়, পাওয়া যায় বিপুল সম্মানও। আন্তর্জাতিক বিশ্বে ব্লগারদের সাংবাদিক হিসাবেও এখন গণ্য করা হয়। এছাড়া অনেকেই জানেন, ইন্টারনেট থেকে ভালো আয়ের ক্ষেত্রে সবচেয়ে উপযোগি একটি মাধ্যম হলো অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং। এই মাধ্যমে আপনি অন্য যেকোনো আয়ের উপায় যেমন অ্যাডসেন্স থেকেও বেশি আয় করতে পারবেন। এখান থেকে আয়ের বিপুল সম্ভাবনা রয়েছে, খোদ আমাদের দেশেই প্রচুর ছেলে মেয়ে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে প্রতিমাসে আয় করছে ২ থেকে ৫ হাজার ডলার পর্যন্ত। অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং হলো এমন একটি বিষয় যার মাধ্যমে প্রথমত আপনি কারো বা কোনো প্রতিষ্ঠানের পণ্য বা সেবা প্রমোট করবেন। এখন কোনো ভিজিটর যদি আপনার অ্যাফিলিয়েট লিংকের মাধ্যমে ঐ পণ্য বা সেবা কিনে থাকেন, তাহলে আপনি একটি নিদ্দিষ্ট পরিমান কমিশন পাবেন। আপনার মার্চেন্ট অর্থাৎ আপনি যার পণ্য বিক্রি করছেন তিনি আপনাকে পেপাল অথবা অন্য কোনো পেয়িং মেথডের মাধ্যমে আপনার কমিশন পরিশোধ করবেন। লেখালেখি ও অ্যাফিলিয়েটের মাধ্যমে যারা নিজেদের ক্যারিয়ার গড়তে চান তাদের কথা মাথায় রেখেই এ প্রশিক্ষণের সিলেবাস প্রণয়ন করা হয়েছে।

অ্যাফিলিয়েটের ক্ষেত্রে আপনাকে কি বিক্রি করতে হবে?
সবকিছুই! অনলাইনে যেকোন ধরণের পণ্য বিক্রি করেই আপনি এ কাজটি করতে পারেন। প্রচুর প্রতিষ্ঠান রয়েছে যারা অ্যাফিলিয়েশন মার্কেটারদের মাধ্যমে পণ্য বিক্রি করে থাকে, অ্যাফিলিয়েশন জানা থাকলে তাই পণ্যের কোন অভাব নেই অনলাইনে। এখানে পন্য যেমন বিক্রি করা যায় তেমনি বিভিন্ন সার্ভিস বিক্রি করেও আয় করার সুযোগ রয়েছে।

অ্যাফিলিয়েশন ব্যবসা করার জন্য কি কি প্রয়োজন?
অ্যাফিলিয়েশন ব্যবসা করার জন্য প্রয়োজন ২ থেকে ৩ হাজার টাকা পুঁজি এবং নিজের দক্ষতা। সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন জানা ছাড়া অ্যাফিলিয়েশন মার্কেটিংয়ে কোনভাবেই সফল হওয়া সম্ভব না। ইংরেজিতে আর্টিকেল লিখতে পারার ক্ষমতাও থাকতে হবে।

এ সেক্টরে কাজ করলে ভবিষ্যত কেমন?
অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এর গুরুত্ব বড় বড় কোম্পানি গুলোর কাছে বেড়েই যাচ্ছে। যেকোনো ছোট বড় কোম্পানি তাদের পণ্যের প্রচার আর বিক্রি বাড়ানোর জন্য কোন প্রোডাক্ট মার্কেটে ছাড়ার সাথে সাথে এফিলিয়েট মার্কেটিং করার জন্য মার্কেটার দের দারুন দারুন সব অফার দিয়ে ঐ পণ্যের এফিলিয়েট মার্কেটিং করার জন্য বলে থাকে। তা সে যে প্রোডাক্ট ই হোক না কেন। এটা হতে পারে কোন বই বা কোন সফটওয়্যার বা কোন মেডিসিন কিংবা অন্য কিছু। মূল বিষয় কিন্তু সব জায়গায়ই এক। আমরা তাদের পণ্যের প্রচার ও বিক্রি করবো, বিনিময়ে টাকা পাবো। এতে লাভ আমাদের ২ জনেরই। আমরা যেমন আমি পয়সা আয় করতে পারছি তেমনি কোম্পানির লাভ তারা তাদের পাবলিসিটি পাচ্ছে এবং তাদের বিক্রি কয়েক শত গুন বেড়ে যাচ্ছে।
আপনি ভাবতে পারেন? গত বছর অ্যামাজান ডট কম শুধু মাত্র তাদের এফিলিয়েট মার্কেটারদের মাধ্যমেই প্রায় ২৫ বিলিয়ন ডলারের পণ্য বিক্রি করেছে। এবং সে তার অ্যাফিলিয়েট মার্কেটারদের প্রায় ২ বিলিয়ন ডলার পেমেন্ট করেছে। এটি গেল একটি প্রতিষ্ঠানের অ্যাফিলিয়েশনের হিসাব। অন্য আরোও লাখো প্রতিষ্ঠান তো রয়েছেই। সে তুলনায় ইন্টারনেট মার্কেটার রয়েছে খুব কমই। এ সেক্টরে কাজ করলে ভবিষ্যত যে উজ্জল হবে সেটি তো বোঝাই যায়।

প্রফেশনাল ব্লগার ও অ্যাফিলিয়েট মার্কেটার হওয়ার যোগ্যতাঃ
যোগ্যতা বলতে আমরা যে কিছু সার্টিফিকের আর চোথা বুঝি, অ্যাফিলিয়েশন করার জন্য আসলে তেমন যোগ্যতার দরকার নেই। যেহেতু বিক্রিটাই ইন্টারনেটে, তাই ইন্টারনেট বেসিক আপনার অবশ্যই থাকতে হবে। ইংরেজি পড়তে এবং লিখতে পারার ক্ষমতাও থাকতে হবে। ব্লগিংয়ের ক্ষেত্রে ইন্টারনেট সংক্রান্ত জ্ঞান আছে, লেখালেখিতে আগ্রহ আছে, ইংরেজি পড়তে বুঝতে পারেন এমন যে কেউ এ প্রশিক্ষণে অংশ নিতে পারেন।

আপনার মাসিক আয় কত হবে?
ব্লগিং ও অ্যাফিলিয়েশন মার্কেটিংয়ের আপনার আয় কত হবে তা নির্ভর করবে কাজের উপর। অ্যাফিলিয়েশনের ক্ষেত্রে আপনি যত পণ্য বিক্রি করতে পারবেন আয়ও তত বেশি হবে। বাংলাদেশী অনেক ইন্টারনেট মার্কেটার রয়েছে যারা বর্তমানে ২ থেকে ৫ হাজার ডলার পর্যন্ত আয় করে থাকে। আর বিশ্বে এখন এমন অনেক অ্যাফিলিয়েট মার্কেটার আছেন যাদের মাসিক আয় ৫০-৭০ হাজার ডলার। শুরু করুন, কিছুদিন গেলে নিজেই বুঝতে পারবেন আপনার দ্বারা কোন গোলটিতে পৌছনো সম্ভব। আর ব্লগিংয়ের ক্ষেত্রে মূলত অ্যাডসেন্স বা অন্য কোনো অ্যাড বসিয়ে আয় করার উপর নির্ভর করে আপনার মোট আয়। তবে ব্লগিং ও অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং প্রায় একই ধরনের হওয়ায় আপনি অ্যাফিলিয়েশন, অ্যাডসেন্স বা অন্য কোনো অ্যাডের মাধ্যমে আয়ের সুযোগ পাচ্ছেন।

প্রশিক্ষণ কি বাধ্যতামূলক?
যারা ব্লগিং ও অ্যাফিলিয়েশন মার্কেটিংয়ে সফল হতে চান, নিজের ক্যারিয়ারকে এই বিষয়ের উপর প্রতিষ্ঠিত করতে চান তাদের জন্য প্রশিক্ষণ বাধ্যতামূলক। কারন প্রশিক্ষণে ব্লগিং ও অ্যাফিলিয়েশন মার্কেটিং সংক্রান্ত সব বিষয় এমনভাবে শেখানো হবে যেটি আপনাকে একজন সফল ব্যবসায়ী হিসাবে প্রতিষ্ঠিত করবে। আপনি যতদিন সফল না হবেন ততদিন DevsTeam ইনস্টিটিউটের সাপোর্ট পাবেন। প্রশিক্ষণ ছাড়া হয়ত আপনি কোনভাবে শুরু করতে পারবেন কিন্তু এরজন্য এমন কিছু ‘হিডেন’ ব্যাপার আছে যা আপনাকে কোনভাবেই সফল হতে দেবেনা, মাঝে আপনি বছরের পর বছর সময় অকারণে নষ্ট করবেন।

আপনি কি কি শিখতে পারবেন
১. অ্যাফিলিয়েশন মার্কেটিংয়ের জন্য সহজে কিভাবে আপনার ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারবেন।
২. কিভাবে আর্টিকেল কপিরাইটিং করতে হবে।
৩. সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন অ্যাডভান্স
৪. কিভাবে প্রোডাক্ট রিসার্স করবেন।
৫. কিওয়ার্ড এবং নিশ রিসার্চ করার কলাকৌশল।
৭. কিভাবে প্রোডাক্ট রিভিউ লিখবেন।
৮. কিভাবে টাকা হাতে আসবে।
৯. বিক্রি বাড়ানোর মূলমন্ত্রগুলো।
আর ব্লগিংয়ের উপর ভিত্তি করে কিভাবে নিজের ব্লগসাইট তৈরি করতে হবে। গুগল অ্যাডসেন্সে অ্যাকাউন্ট খুলতে হবে, কিভাবে পোস্ট লিখতে হবে, কিভাবে পোস্টের আইডিয়া জেনারেট করতে হবে, কিভাবে অ্যাড বসাতে হবে, কিভাবে পোস্ট লিখলে সেটিতে ভিজিটর বেশি পাওয়া যাবে, কিভাবে গুগল অ্যাডসেন্সের টাকা বাংলাদেশে আনতে হবে, কিভাবে নিশ ব্লগ তৈরি করে ব্যবসা করা যাবে এবং কিভাবে অ্যাডসেন্স অ্যাকাউন্ট ব্যন হওয়া থেকে রক্ষা পাওয়া যাবে এমন পরীক্ষিত শত শত টিপস। আর সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন করার অ্যাডভান্স সব টিপস তো আছেই। এছাড়া প্রোডাক্ট রিসার্স (চাহিদা সম্পন্ন প্রফিট এবল পণ্য নির্বাচণ করবেন), কিওয়ার্ড রিসার্স (সার্চ ইঞ্জিন থেকে টার্গেটেড ভোক্তা প্রোডাক্ট বেস কিওয়ার্ড নির্বাচন ), ব্লগ বা ওয়েব সাইট রেডি করা (সার্চ ইঞ্জিন ফ্রেন্ডলি ব্লগ বা ওয়েব সাইট তৈরি করা), প্রোডাক্ট রিভিউ লিখা ( কাস্টমারকে পণ্য প্রদর্শণ ও লেখনির মাধ্যমে পণ্য কেনায় উৎসাহিত করতে), সাইটে টার্গেট ট্রাফিক আনার (এসইও, এসএমএম etc এর মাধ্যমে টার্গেটেড ট্রাফিক আনার ব্যবস্থা) সিস্টেমেটিক প্রয়োজনীয় সব বিষয় তো রয়েছেই।

এটি শিখলে লাভ
যারা ব্লগিং ও অ্যাফিলিয়েটের মাধ্যমে স্বাবলম্বী এবং Self Dependent হতে চান তাদের জন্যই এ কোর্স। এটি শিখে আপনার যোগ্যতা অনুযায়ী প্রতি মাসে ৫০০ ডলার থেকে ৫ হাজার ডলার পর্যন্ত আয় করতে পারবেন। ফ্রিল্যান্সিংয়ে কাজ না করলে কোনরকম টাকা পাওয়া যায় না, তবে ব্লগিং বা অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিংয়ের ক্ষেত্রে একবার পরিশ্রম করলে সেটির ফলাফল দীর্ঘ মেয়াদী সময় ধরে পাওয়া যায়, অর্থ্যাৎ আয় হতে থাকে অনেকদিন পর্যন্ত। এজন্য ফ্রিল্যান্সিংয়ের চেয়ে ব্লগিং ও অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং অনেকটা নিরাপদ, নিশ্চিত। তবে যারা এ কোর্সটি করবেন, তারা নিজেরা ব্লগিং না করে অন্যের সাইটের এসইও সংক্রান্ত কাজেও ফ্রিল্যান্স হিসাবে ক্যারিয়ার শুরু করতে পারেন।

কারা শেখাবেন?
DevsTeam এ চালু হয়েছে সার্টিফায়েড অ্যাফিলিয়েশন মার্কেটার প্রশিক্ষন। সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন, ব্লগিং এবং অ্যাফিলিয়েশন নিয়ে তিন / চার বছরেরও বেশি সময় ধরে কাজ করছেন এমন একটি টিম এই প্রশিক্ষণ কোর্স পরিচালনা করবেন।
১. তাহের চৌধুরী সুমন -ব্লগার, ইন্টারনেট মার্কেটার এবং এসইও প্রফেশনাল
২. মাসুদুর রশীদ – ব্লগার এবং অ্যাফিলিয়েট মার্কেটার (এসইও এক্সপার্ট)
৩. নাসির উদ্দিন শামীম, ব্লগার এবং মাল্টি ন্যাশনাল এসইও কনসালট্যান্ট (এসইও এক্সপার্ট

প্রশিক্ষণ ফি কত?
দুমাসের তাত্বিক প্রশিক্ষণ এবং এক মাসের রিয়েল লাইফ প্রজেক্ট সহ মোট প্রশিক্ষন ফি: ১৫,০০০ টাকা।

 আমাদের অফিসের ঠিকানা:
DevsTeam Institute
DevsTeam, সুইট ১২১২, লেভেল ১২
মাল্টিপ্লান সেণ্টার, ৬৯-৭১ এলিফেন্ট রোড, ঢাকা।
মোবাইলঃ  ০১৭১১২৬৭৯১১, ০১৮১২১৫৪৪৫৯।

আরোও বিস্তারিত জানতে চাইলে বা ইভেন্ট সংক্রান্ত কোন প্রশ্ন থাকলে ইভেন্ট ওয়ালে করতে পারেন। আলোচনার জন্য যোগ দিতে পারেন আমাদের অফিসিয়াল ফেসবুক গ্রুপে।

১. ফেসবুক গ্রুপ: https://www.facebook.com/groups/DevsTeam
২. ফেসবুক পেজ: https://www.facebook.com/DevsTeam
৩. আমাদের টুইটার: https://www.twitter.com/DevsTeam
৪. আমাদের লিংকেডিন: http://www.linkedin.com/company/devsteam

আমাদের দ্বিতীয় ব্যাচ এর ক্লাশ শুরু হচ্ছে আগামী ২৫ জুলাই থেকে। আর মাত্র অল্প কয়েকটা আসন খালি আছে… যারা যারা প্রশিক্ষণ নিতে চান তারা আগামি ২৩ তারিখের মধ্যে অফিসে এসে রেজিস্ট্রেশন প্রসেস গুলো কমপ্লিট /বা ফোনে ও কনফার্ম করার জন্য অনুরোধ করা হচ্ছে।

comments

Comments

  1. alimtaseen says:

    Today I met Taher bhai..really knowledgeable person.During our conversation i set up my mind to admit here.Thanx brother.

  2. Sagor says:

    Vya,apnader site a dukle e j pop up load hoy ata amar site a korbo kivabe?? plz code ta janan

  3. আপনারা কেও আমার মেল এর জবাব না দিয়ে কস্ট দিলেন. SITE এর PASSWORD সংরক্ষিত লেখা গুলো প্রিমিয়াম মেম্বারদের মেল করে দিতেন আপনার ব্লগে প্রকাশ না করলে পারতেন এভাবে পাঠকদের কষ্ট দিবেন না আর পাঠক ব্লগে আসে গুরুত্বপূর্ণ পোস্ট গুলি পড়তে এবং কিছু শিখতে মজা করতে না

    • অভি says:

      দাদা ,এইটা আপনি কি কইলেন :O ,আগে পোস্ট টা পড়ুন ,দেখুন

      কারন এটা টেক রিলেটেড ব্লগ না , সো এমন প্রশ্ন করবেন না ।।

  4. Md. Moshiur Rahman (Sumon) says:

    Dear sir,

    I am coming to do the course within 23rd july. please keep the one seat for me.

    • বদরুদ্দোজা মাহমুদ তুহীন says:

      আপনি অফিসে এসে নিবন্ধন করে ও বিস্তারিত জেনে যান। এক্ষেত্রে বিশেষ কিছু নিয়ম মানতে হবে। তাই অফিসে এসে নিবন্ধন করা জরুরী। 🙂

  5. debashalder says:

    আমি আবেগপ্রবণ হয়ে ভুল বশত মন্তব্য টি করে ফেলি ।যদি মন্তব্য মোছার কোনও অপশন থাকতো তাহলে আমি নিজেই মন্তব্য টি মুছে ফেলতাম ।আমি এই ব্লগের মোডারেটরদের বলছি দয়া করে আমার উপরের মন্তব্য টি মুছে দিলে ভালো হয় ।

  6. Anika says:

    খুবই সুন্দর এবং তথ্যবহুল পোস্ট। ধন্যবাদ.

  7. Hasib Khan says:

    Thanks

মন্তব্য প্রদান করুন

*