যে চারটি কারণে ব্লগারদের ব্লগিং এর পাশাপাশি ফ্রিল্যান্সিং করা উচিত!

লেখক : , প্রকাশকাল : 23 July, 2012

ব্লগিং অবশ্যই একটি সন্মানজনক পেশা। ব্লগারদের অনেকেক্ষেত্রেই সাংবাদিকদের সঙ্গে তুলনা করা হয়। ব্লগিং করেই সাফল্যজনক অবস্থানে রয়েছেন এমন অনেককেই পাওয়া যাবে। বাংলাদেশে এমন অনেকেই  আছেন যারা ব্লগিং করেই নিজের ক্যারিয়ার গড়ে তুলেছেন। তবে আপনি যদি এই ব্লগিংয়ে নতুন হন অথবা বিশ্বের বুকে ব্লগিংয়ে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে পারেননি, তাহলে আপনাকে অবশ্যই এই পেশাটাকে ফ্রিল্যান্সিং সেক্টরে প্রসারিত করতে হবে। করতেই হবে এমনটি বলছি না, তবে বেশি পরিমাণ আয় ও ব্লগার হিসেবে বিভিন্ন ধরণের জ্ঞান আহরণ ও সেটাকে ফুটিয়ে তোলার জন্য ফ্রিল্যান্সিং করা জরুরী
ফ্রিল্যান্স ব্লগারের ক্ষেত্রে আপনি যে সুযোগ সুবিধা পাবেন, সাধারণ ব্লগিং বা নিজে নিজের ব্লগের জন্য ব্লগিং করে সেই সুযোগ পাবেন না। একজন ব্লগারকে কি কারণে ফ্রিল্যান্সিং করা উচিত সে সম্পর্কে কিছু বিষয় নিয়ে আলোচনার চেষ্টা করেছি। আশাকরি এগুলো আপনাকে নতুন কিছু পরখ করে দেখার, ঝুঁকি নেওয়াসহ অনেক কিছুই শেখাবে।

আর্থিক দিক দিয়ে লাভবান হওয়া

অবশ্যই ফ্রিল্যান্সিং আপনাকে আর্থিক দিক দিয়ে লাভবান করবে। কিন্তু ব্লগিংয়ের ক্ষেত্রে এটি হতে পারে আবার নাও হতে পারে।
ব্লগিংয়ে আপনি যদি নতুন হন, তবে এ বিষয়টি অবশ্যই গুরুত্বপূর্ণ। ব্লগিংয়ের প্রথমদিকে আপনি কোনো আয় নাও করতে পারেন। তবে আপনি যদি ফ্রিল্যান্সার হিসেবে ব্লগিং করেন তাহলে আপনার একদিক দিয়ে আয় হবে অন্যদিকে আপনার ব্লগিংটাও মজবুত হবে
এমনকি আপনার যদি একটি ব্লগও থাকে যেটি দিয়ে আয় করা শুরু করেছেন, তবুও আপনাকে ফ্রিল্যান্সিং করা উচিত। কারণ আপনি জানেন, ব্লগিংয়ের ক্ষেত্রে আয়ের পরিমান তরঙ্গায়িত হয় অর্থ্যাৎ ওঠানামা করে। বিশেষ করে মিডিয়াম সাইজ ব্লগের ক্ষেত্রে এই বিষয়টি ঘটেই থাকে। আপনি কখনোই নিশ্চিতভাবে বলতে পারবেন না যে আপনার ব্লগ থেকে প্রতিবছর আপনি এই নিদ্দিষ্ট পরিমান আয় করতে পারবেন। এর পেছনে অনেক কারণ রয়েছে। এগুলোর মধ্যে গুগলের অ্যালগরিদমের পরিবর্তণ, অন্যান্য ব্লগের সঙ্গে প্রতিযোগিতায় টিকে থাকা, ভিজিটরের পরিমান কমে যাওয়া ইত্যাদি কারণ রয়েছে। বিশ্বের বড় বড় ব্লগের ক্ষেত্রেও এমনটি ঘটতে পারে। নিজস্ব ব্লগিংয়ের পাশাপাশি তাই ফ্রিল্যান্সিং করলে নিয়মিত আপনার একটি নিদ্দিষ্ঠ পরিমান আয় হতে পারে। যেটি আপনার আর্থিক বিষয়ে অনেকটাই চিন্তামুক্ত রাখবে।

সাকসেস হিস্টোরি: আপনি অবশ্যই সাউটমিলাউড ব্লগের নাম শুনেছেন। যদিও এই ব্লগটি থেকে ব্লগটির মালিক ভারতের নতুন দিল্লীর হারশ আগারওয়াল প্রতিমাসে কয়েক হাজার ডলার আয় করে থাকেন। তারপরেও তিনি কনসালটিংসহ বিভিন্ন ধরণের ফ্রিল্যান্সিং কাজ করেন। জনপ্রিয় অনেক ব্লগেই তার লেখা পাওয়া যায়। এটি তাকে তার ব্লগের পাশাপাশি একটি বাড়তি ও ভালো পরিমান আয়ের সুযোগ করে দেয়।

নিজস্ব ব্র্যান্ডিং ও পাবলিসিটি

ব্লগিংয়ের ক্ষেত্রে সফল হতে গেলে অবশ্যই নিজস্ব ব্র্যান্ডিং ও পাবলিসিটির অবশ্যই প্রয়োজন। নিজস্ব ব্লগিংয়ের মাধ্যমে এই প্রাপ্তি নাও আসতে পারে। আপনি যদি আপনার ব্লগ বাদেই জনপ্রিয় ব্লগগুলোতে লেখালেখি করেন তাহলে ভিজিটররা আপনার সম্পর্কে বেশি জানতে পারবে। এটি নিজস্ব ব্র্যান্ডিং ও পাবলিসিটির জন্য জনপ্রিয় একটা মাধ্যম।

বিশ্বের জনপ্রিয় অনেক ব্লগারকেই অন্যান্য জনপ্রিয় জনপ্রিয় ব্লগগুলোতে লেখালেখি করতে অহরহ দেখা যায়। সেখান থেকে সে নিজের ব্লগেও ভিজিটরদের নিয়ে আসতে পারে। ফলে উভয় দিক দিয়ে লাভের সুযোগ রয়েছে।
ফ্রিল্যান্সিং আপনাকে ভালোমানের কন্টেন্ট তৈরি করার সুযোগ দেয়, যেগুলো ভিজিটররা পছন্দ করে। এতে আপনার যোগ্যতা বিশ্বের দ্বারে উন্মোচিত হয়।

নতুনের স্বাদ পাওয়া

একজন ফ্রিল্যান্সার হিসেবে আপনার দক্ষতা অনুযায়ী বিভিন্ন সেক্টরে আপনাকে কাজ করতে হতে পারে। আপনি যদি লেখক হন, তাহলে আপনাকে বিভিন্ন বিষয়ে লেখালেখি করতে হবে। আপনি আগ্রহী এমন কোনো বিষয়ে আরো ভালোভাবে নিজেকে উন্মোচিত করা ও অন্যান্য নিশ সম্পর্কে জানান এটাই সুযোগ। আপনাকে একটি নিশ নিয়ে ভালোভাবে আইডিয়া জেনারেট করতে হয় এবং তারপর সেটি সবার সঙ্গে তুলে ধরেন। তাই আপনার জানার পরিমান অনেক বেড়ে যায়।


অনেক ব্লগারকে বিভিন্ন জনপ্রিয় ও বড় ধরনের প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানে কাজ করতে দেখা যায়। তারপর যখন তারা সংশ্লিষ্ঠ বিষয় ও তার ব্যবসায়িক বিভিন্ন দিকগুলো ভালোভাবে বুঝতে পারেন, তখন নিজে থেকেই প্রকাশনা শুরু করেন। বাংলাদেশে অনেক ব্লগারকেই দেখা যায় যারা বিভিন্ন মিডিয়ার সঙ্গে জড়িত আছেন। ফলে নিজস্ব ব্লগিংয়ের পাশাপাশি অনেক কিছুই এক্সপ্লোর করার সুযোগ পান তারা।

ব্যবসায়িক ধারণা লাভ

উপরের পোস্টেই এমনটি বলছিলাম। আপনি যখন ফ্রিল্যান্সিং করবেন তখন আপনাকে দিয়ে যারা ফ্রিল্যান্সিং কাজ করাচ্ছেন তারা কি করছে সেটি জানার সুযোগ পাবেন। এরফলে তাদের ব্যবসায়িক বিভিন্ন  কৌশল জানতে পারবেন। এছাড়া আপনি যখন অন্যের কাজ করবেন ও তার জন্য টাকা পাবেন, তারা আপনাকে অবশ্যই সফলভাবে ব্যবহার করবে। তারা আপনার কাছ থেকে ভালো আউটপুট পাওয়ার চেষ্টা করবে এবং আপনাকে এই বিষয়ে অনেক কিছুই শেখাবে। ফলে আপনি সংশ্লিষ্ঠ বিষয়টি কিভাবে ভালোভাবে শেষ করা ও সেটি সফলভাবে বানিজ্যিক কাজে লাগানো যায় সেটি জানতে পারবেন। এই শিক্ষাগুলো থেকেই আপনি আপনার ব্লগকে লাভজনক অবস্থানে নিয়ে আসতে পারবেন।

এছাড়া ফ্রিল্যান্সিংয়ের মাধ্যমে আরো অনেক কিছু জানার সুযোগ ও সেগুলো আপনার সাফল্যের পিছনে ব্যবহার করার সুযোগ রয়েছে। তাই এককথায় বলতে গেলে বলতে হয়, সফল ব্লগার হতে হলে আপনাকে অবশ্যই একজন সফল ফ্রিল্যান্সার হতে হবে!

comments

Comments

  1. মুলত ব্লগিং একটা শখের পেশা… অনেকেই অবসর সময় টা কাজে লাগায় কিছু লেখা বের করে আনার জন্যে….
    সাথে কিছু মাইনে আসলে খারাপ কি ?
    চালিয়ে যান!!!

  2. babel says:

    bangladeshi reliable earning solution.

    work at your own home .

    thanks to all

মন্তব্য প্রদান করুন

*